লর্ডসে অনুষ্টিত বিশ্বকাপের ৪৯ তম ম্যাচে বাংলাদেশকে ৩১৫ রানের টার্গেট দিয়েছে পাকিস্তান। প্রথমে ব্যাট করে পাকিস্তান নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে ৯ উইকেটের বিনিময়ে ৩১৪ রান করে।

স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে দশটায় অনুষ্টিত এ ম্যাচে টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন পাকিস্তানের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ। ব্যাটিংয়ে নেমে ইমাম উল হকের সেঞ্চুরি ও বাবর আজমের ৯৬ রানে ভর করে পাকিস্থান বড় সংগ্রহ পায়।

বিশ্বকাপে দ্বিতীয় বোলার হিসেবে ২০ উইকেট শিকার করার গৌরব অর্জন করেছেন পেসার মুস্তাফিজুর রহমান। সেরা পাঁচ বোলারের মধ্যে তিনি বর্তমানে ২ নম্বর স্থানে আছেন। মিচেল স্টার্ক লিস্টের প্রথম স্থানে আছেন।

মুস্তাফিজ শিকার করেন পাকিস্তানের ৫ উইকেট। যদিও ম্যাচে তিনি খরুচে ছিলেন। দশ ওভার বোলিং করে ৭৫ রানের বিনিময়ে তিনি নেন ৫ উইকেট। চলতি বিশ্বকাপে দ্বিতীয়বারের মত তিনি পাঁচ উইকেট লাভ করলেন।

বোলারদের মধ্যে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন পেয়েছেন ৩ উইকেট। তিনিও যথেষ্ট খরুচে ছিলেন। ৯ ওভার বল করে ৭৭ রান দেন তিনি। অধিনায়ক মাশরাফি নিজের বিশ্বকাপের শেষ ম্যাচেও মলিন ছিলেন। ৭ ওভার বল করে কোন উইকেট ছাড়া তিনি ৪৬ রান দেন।

তবে পেসাররা খরুচে থাকলেও স্পিনাররা যথেষ্ট কিপটে ছিলেন। মেহেদি হাসান মিরাজ ১০ ওভার বোলিং করে মাত্র ৩০ রান দিয়ে শিকার করেন ১ উইকেট। তাঁর ইকোনমি ছিল ৩। সাকিব আল হাসান ১০ ওভার বোলিং করে কোন উইকেট ছাড়া ৫৭ রান দেন।

বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে তিনটায় অনুষ্টিত এ ম্যাচে ব্যাটিংয়ের শুরুটা ভাল হয়নি পাকিস্তানের। দলীয় ২৩ রানে ওপেনার ফখর জামানকে ফিরান সাইফউদ্দিন। ফখর জামান ১৩ রান করে আউট হন।

এরপর ইমাম উল হককে নিয়ে বড় জুটি গড়েন বাবর আজম। দুজনে মিলে করেন করেন ১৯৬ রানের জুটি। বাবর আজম সেঞ্চুরি থেকে মাত্র ৪ রান দূরে থাকতে সাইফউদ্দিনের বলে এলবিডব্লিউয়ের শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরে যান।

বাবরের ৯৮ বলে ৯৬ রানের ইনিংসে ছিল ১১ চারের মার। বাবর আউট হবার পর ইমাম উল হক তুলে নেন শতক। ১০০ বলে ১০০ রান করে দুর্ভাগ্যবশত হিট উইকেটের শিকার হয়ে আউট হয়ে যান তিনি। তাঁর ইনিংসে ছিল ৭টি চারের মার।

এরপর হাফিজ ২৫ বলে ২৭ রান করে আউট হন। হাফিজের পর দ্রুত বিদায় নেন হারিস সোহেল ও পাকিস্তানের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ। এরপর ইমাদ ওয়াসিম মাত্র ২৬ বলে ৪৩ রান করে দলকে ৩০০ পার করতে সাহায্য করেন।

নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে পাকিস্তানের দলীয় স্কোর দাড়ায় ৯ উইকেটে ৩১৫ রান। বাংলাদেশের হয়ে ৫ উইকেট শিকার করেন পেসার মুস্তাফিজুর রহমান। অলরাউন্ডার সাইফউদ্দিন শিকার করেন ৩ উইকেট। মিরাজ ও সাকিব পান ১টি করে উইকেট।

৩১৬ রানের টার্গেটে এখন ব্যাট করছে বাংলাদেশ। সৌম্য দ্রুত রান তুলার ইঙ্গিত দিয়ে ২২ রান করে মোহাম্মদ আমিরের বলে আউট হয়ে যান। এরপর তামিম ইকবাল ব্যর্থ হন। ২১ বল খরচায় মাত্র ৮ রান করে আউট হন তিনি। ক্রিজে সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহম।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

পাকিস্তানঃ ৩১৫/৯ ( ৫০ ওভার) ইমাম ১০০, বাবর ৯৬

মুস্তাফিজ ৫/৭৫, সাইফউদ্দিন ৩/৭৭

বাংলাদেশঃ ৭৫/২* (১৬.৩ ওভার) সাকিব ২৯*, মুশফিক ১৫*

Mustafa Shakir
আরও পড়ুনঃ
পাকিস্তানের বিপক্ষে টসে হেরে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ
শেষ ম্যাচেও হেরে বিশ্বকাপে খালি হাতে ফিরল আফগানরা
জনি বায়িস্ট্রোর সেঞ্চুরিতে সেমিফাইনালে স্বাগতিক ইংল্যান্ড

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Your Rating:05

Thanks for submitting your comment!