বিশ্বকাপের ১৭ তম ম্যাচে আজ পাকিস্থানের বিরুদ্ধে মাঠে নামে অষ্ট্রেলিয়া। বাংলাদেশ সময় দুপুর সাড়ে তিনটায় অনুষ্টিত এ ম্যাচে টসে জিতে অস্ট্রেলিয়াকে প্রথমে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানান পাকিস্থানের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ।

অষ্ট্রেলিয়া ৪৯ ওভারে সব উইকেট হারিয়ে ৩০৭ রান করে। অষ্ট্রেলিয়ার ওপেনার ডেবিড ওয়ার্নার  শতক তুলে নেন। ১১১ বল খেলে ১০৭ রান করে থামে তাঁর ইনিংস। অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ করেন দলের দ্বিতীয় সর্বচ্চো। ফিঞ্চ ৮৪ বলে ৮২ রান করে আউট হন।

ওয়ার্নার  আর ফিঞ্চ ছাড়া অস্ট্রেলিয়ার আর কোন ব্যাটসম্যান বড় স্কোর করতে পারেননি। ফলে ৩০৭ রানে থামে অষ্ট্রেলিয়ার ইনিংস। এছাড়া শন মার্স ২৩, ম্যাক্সয়েল ২০, আলেক্স ক্যারি ২০, উসমান খাজা ১৮ রান করেন।

পাকিস্থানের বোলার মোহাম্মদ আমিরের বোলিং তোপে পড়ে অষ্ট্রেলিয়ার আর কোন ব্যাটসম্যান দাড়াতে পারেনি। আমির মাত্র ৩০ রানের বিনিময়ে ৫ উইকেট শিকার করেন। আমির যদি অষ্ট্রেলিয়া দলের লাগাম না ধরতেন তাহলে স্কোর আরও বড় হতে পারত।

এছাড়াও পাকিস্থানের হয়ে ২ উইকেট তুলে নেন শাহিন শাহ্‌ আফ্রিদি। একটি করে উইকেট লাভ করেন হাসান আলী, ওহাব রিয়াজ ও মোহাম্মদ হাফিজ।

৩০৮ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের তৃতীয় ওভারে পাকিস্তান হারায় ফখর জামানের উইকেট। প্যাট কামিন্সের বলে ৩ বলে শুন্য রান করে আউট হন তিনি।

এরপর দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে বাবর আজম আর ইমাম উল হক মিলে করেন ৫৪ রান। কিন্তু এ জুটি সেট হওয়ার আগেই বাবরকে ৩০ রানে ফেরান কোল্টাল নাইল। পরে তৃতীয় উইকেট জুটিতে মোহাম্মদ হাফিজ ও ইমাম উল হকের জুটিতে ৮০ রান যোগ হলে ঘুরে দাঁড়ায় পাকিস্তান।

কিন্তু ইমাম অর্ধশতক করে আউট হয়ে গেলে ব্যাকফুটে চলে যায় পাকিস্থান। ইমাম ৭৫ বলে ৫৩ রান করে আউট হন। ইমাম উল হকের পড়ে অভিজ্ঞ হাফিজও ক্রিজে টিকতে পারেননি। ফিঞ্চের ফুলটস বল মারতে গিয়ে বাউন্ডারি লাইনে স্টার্কের তালু বন্দি হন তিনি। ৪৬ রান করে আউট হন হাফিজ।

হাফিজের বিদায়ের পর পাকিস্থানের দ্রুত দুই উইকেট পড়ে যায়। এরপর পাকিস্থানের অধিনায়ক শরফরাজ আহমেদ ও হাসান আলী মিলে দলকে ভাল একটা জুটি উপহার দেন। হাসান আলী ১৫ বলে ৩২ রান করে আউট হলে সরফরাজকে নিয়ে দলের হাল ধরেন ওয়াহাব রিয়াজ।

কিন্তু সরফরাজ রান আউট ও ওয়াহাব রিয়াজ স্টার্কের শিকার হয়ে আউট হলে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে। ৪৫.৪ ওভার শেষে পাকিস্থান সব উইকেট হারিয়ে ২৬০ রান করতে সক্ষম হয়। অষ্ট্রেলিয়া ৪১ রানে ম্যাচ জিতে যায়। ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হন ডেবিড ওয়ার্নার।

Mustafa Shakir

আরও পড়ুনঃ বৃষ্টি বাধায় বাংলাদেশ শ্রীলংকার ম্যাচ পরিত্যক্ত!

তামিম ফর্মে ফিরলে বিপজ্জনক হয়ে উটবে বাংলাদেশঃ হাতুরেসিংহে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Your Rating:05

Thanks for submitting your comment!