কার্ডিফ এ বিশ্বকাপের ১২ তম ম্যাচে আজ মাঠে নামবে স্বাগতিক ইংল্যান্ড ও বাংলাদেশ। উভয় দল বিশ্বকাপে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচ খেলবে। বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে তিনটায় অনুষ্টিত হবে এ ম্যাচটি।

কার্ডিফ এর সোফিয়া গার্ডেনস বাংলাদেশের জন্য লাকি একটা মাঠ। এই মাঠেই ২০০৫ সালে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়েছিল টাইগাররা। ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে নিউজিল্যান্ডকেও হারিয়েছে এই মাঠে। আজ ইংল্যান্ডের বিপক্ষে জয় পেলে কার্ডিফ এ হ্যাট্রিক জয় পূর্ণ করবে বাংলাদেশ।

বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের সাথে বাংলাদেশের সুখস্মৃতি আছে। বিশ্বকাপে দুই দল একে অন্যের সাথে তিনবার মোকাবিলা করছিল। তিনবারের দেখায় দুইবারই বাংলাদেশ জয়লাভ করছে।

২০১১ সালে নিজেদের মাঠিতে অনুষ্টিত বিশ্বকাপে বাংলাদেশ ইংল্যান্ডকে হারিয়েছিল। এরপর ২০১৫ বিশ্বকাপেও অস্ট্রেলিয়ার মাঠিতে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছিল বাংলাদেশ।

এবারের বিশ্বকাপ অনুষ্টিত হচ্ছে ইংল্যান্ডে। বিশ্বকাপে হট ফেভারিট হিসেবে ইংল্যান্ড দল শুরু থেকেই আছে। কিন্তু বাংলাদেশ যেভাবে বিশ্বকাপ শুরু করেছে, তাতে যেকোন প্রতিপক্ষকে হারাতে পারে। তাই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে জয়ের জন্যই খেলবে বাংলাদেশ।

দুই দলই নিজেদের প্রথম ম্যাচ দক্ষিন আফ্রিকার সাথে খেলেছে এবং দক্ষিন আফ্রিকাকে হারিয়ে টুর্নামেন্টে শুভসূচনা করেছে। পরের ম্যাচে অবশ্য দু দলই হেরে গেছে।

ইংল্যান্ড হেরেছে পাকিস্তানের সাথে আর বাংলাদেশ হেরেছে নিউজিল্যান্ডের সাথে। যদিও বাংলাদেশ নিউজিল্যান্ডের সাথে জিততে পারত। কিন্তু লো স্কোরিং ম্যাচে বাংলাদেশ যেভাবে ফাইট করেছে তাঁর প্রশংসা সবাই করেছেন।

সর্বশেষ আইসিসির র‌্যাংকিংয়ে দেখা যায় ইংল্যান্ডের অবস্থান শীর্ষস্থানে। আর বাংলাদেশের অবস্থান র‍্যাংকিংয়ের সপ্তম স্থানে। ইংলিশদের রেটিং পয়েন্ট ১২১, আর সেখানে টাইগারদের রেটিং পয়েন্ট ৯০। শীর্ষ থাকা ইংলিশদের সাথে র‌্যাংকিংয়ের পার্থক্য ছয় আর রেটিং পয়েন্টের ব্যবধান ৩১।

তবে র‌্যাংকিং দিয়ে এই বিশ্বকাপে বাংলাদেশকে মাপা বোকামি। বিশ্বকাপে এর মাঠে ব্যাট-বলে দুর্দান্ত পারফর্ম করেই প্রতিপক্ষের জন্য হুমকি দিয়ে রাখছে টাইগাররা। এবার সেই লড়াইয়ে ইংলিশদের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে হুঙ্কার ছাড়ছে টিম টাইগার্স। বিশ্বকাপের মঞ্চে ইংলিশদের বিপক্ষে সাফল্য যে টাইগারদেরই বেশি।

তাই ইংলিশরাও বাংলাদেশকে সমীহ করে কথা বলছে। ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে ইংল্যান্ড অধিনায়ক ইয়ন মরগান বলেন, ‘বাংলাদেশ এখন এমন একটি দল নিয়ে এসেছে যারা অনেক ম্যাচ খেলেছে। তাদের সিনিয়র ক্রিকেটাররা অনেক অভিজ্ঞ। সিনিয়ররা আমাদের সিনিয়রদের চেয়েও বেশি ম্যাচ খেলেছে।’

তিনি আরও বলেন, তিনি বলেন, ‘আমরা অবশ্য চাপ অনুভব করছি না। বিশ্বকাপের আগে আমরা পরাজিত ম্যাচগুলো নিয়ে কথা বলেছি। কীভাবে ঘুরে দাঁড়াতে হয় এসব নিয়ে আলোচনা করেছি।’

‘একটা ম্যাচ আমরা হেরেছি, ঐ ম্যাচে আমরা জেতার মত পারফরম্যান্সও করতে পারিনি। ভালো খেলতে পারিনি আমরা। তবে ব্যাটসম্যানরা ভালো করেছে। দুইজন শতকও পেয়েছে। ৩৫০ রান প্রায় করে ফেলছিলাম আমরা।’

আর কিছু সময় পরেই মাঠে গড়াবে বাংলাদেশ বনাম ইংল্যান্ডের ম্যাচ। ম্যাচে ভাল খেলে জয় নিয়ে আসবে বাংলাদেশ এই প্রত্যাশা সবার।

লেখকঃ সাকির আহমদ

আরও পড়ুনঃ নিউজিল্যান্ডের সাথে দারুন লড়াই করে হেরেছে বাংলাদেশ

প্রথম ম্যাচেই শক্তিশালী দক্ষিন আফ্রিকাকে হারাল বাংলাদেশ

ইংল্যান্ডকে হারিয়ে ঘুরে দাঁড়াল পাকিস্থান

দক্ষিন আফ্রিকাকে হারিয়ে বিশ্বকাপে উরন্ত সুচনা ইংল্যান্ডের

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Your Rating:05

Thanks for submitting your comment!