বিশ্বকাপের ১০ ম্যাচে ওয়েস্টইন্ডিজকে ১৫ রানে হারিয়েছে অষ্ট্রেলিয়া। কোল্টার নাইলের ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস ও স্টিভ স্মিথের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ের উপর ভর করে ম্যাচ জিতে নেয় তারা। ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হয়েছেন নাথান কোল্টার নাইল।

ন্যটিংহ্যামে বিশ্বকাপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে অষ্ট্রেলিয়া টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামে। ব্যাট করতে নেমে ওয়েস্টইন্ডিজ বোলারদের দাপটে অস্ট্রেলিয়ার একের পর এক উইকেট পরতে থাকে। অষ্ট্রেলিয়ায় দলের এমন ব্যাটিং বিপর্যয়ে দলের হাল ধরেন সাবেক অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ।

বল টেম্পারিংয়ের দায়ে একবছর জাতীয় দলের ক্রিকেটে নিষিদ্ধ ছিলেন। হারিয়েছেন দলের অধিনায়কের দায়িত্ব। কিন্তু নিজের ফর্ম ধরে রেখেছেন ঠিকমত। দলের সাথে এতদিন বাইরে থাকার পরও তাঁর পারফরম্যন্সে একটু চির ধরেনি।

তাইতো ওয়েস্টইন্ডিজ বোলারদের সামনে দল যখন এক এক করে উইকেট হারিয়ে ম্যাচের বাইরে চলে যাচ্ছিল। তখন তিনি অ্যালেক্স ক্যারিকে সাথে নিয়ে দলকে এন দিলেন সম্মানজনক একটি স্কোর।

শেষ দিকে নাথান কোল্টার নাইলের অবিশ্বাস্য ব্যাটিং এর উপর ভর করে অষ্ট্রেলিয়া দল পায় লড়াকু সংগ্রহ। ক্যারিয়ারের প্রথম হাফসেঞ্চচুরি করা কোল্টার নাইলের সামনে সুযোগ ছিল প্রথম সেঞ্চুরি করারও।

কিন্তু ৯২ রানে থেমে যেতে হয় তাকে। কার্লোস ব্রাথওয়েটের বলে ক্যাচ আউট হওয়ার আগে খেলেন রেকর্ড করা বিধ্বংসী ইনিংস।

শুরুতেই অস্ট্রেলিয়া প্রথম চার উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায়। ওপেনার ডেবিট ওয়ার্নার ৩, অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ ৬, উসমান খাজা ১৩ ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ০ করে আউট হলে দল বিপর্যয়ের মধ্যে পড়ে যায়।

এরপর স্টিভেন স্মিথ ১০৩ বলে ৭৩ রান, অ্যালেক্স ক্যারি ৫৫ বলে ৪৫ রান ও নাথান কোল্টার নাইলের ৯২ রান দলকে ম্যাচের লড়াইয়ে ফিরিয়ে আনে।

ক্যারিবিয় দলের হয়ে কার্লোস ব্র্যাথওয়েট ৩টি, ওশানে থমাস, শেল্ডন কটরেল, আন্দ্রে রাসেল তুলে নেন ২টি ও অধিনায়ক জেসন হোল্ডার নেন ১টি উইকেট।

২৮৯ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে গেইল আভাস দিচ্ছিলেন দারুন শুরুর। কিন্তু ব্যাক্তিগত ২১ রানে আউট হয়ে যান তিনি। যদিও ১৭ বলে ২১ রান করা গেইলের আউটটি দৃষ্টিকটু ছিল।

গেইল বিদায়ের পর উইকেটে এসে দলের রানের চাকা এগিয়ে নেন শাই হোপ ও নিকোলাস পুরান। শাই হোপ ১০৫ বলে ৬৮ রান ও নিকোলাস পুরান ৩৬ বলে ৪০ রান করে বিদায় নিলে দল চাপের মধ্যে পড়ে।

শিমরন হেটমেয়ার ইঙ্গিত দিচ্ছিলেন দলকে চাপ থেকে মুক্ত করে জয়ের পথে নিয়ে যাওয়া। কিন্তু ব্যাক্তিগত ২১ রান করে রানআউটের শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরেন তিনি।

পরে অধিনায়ক জেসন হোল্ডার একটু একটু করে দলকে নিয়ে যাচ্ছিলেন দলকে জয়ের বন্দরে। কিন্তু আবারও আম্প্যায়ারদের বিতর্কিত সিদ্ধান্তে ইনিংস বড় করতে পারেননি তিনি। ৫৭ বলে ৫১ রান করে মিচেল স্টার্কের বলে আউট হন তিনি।

এরপর আর কোন উইন্ডিজ ব্যাটসম্যান অজি বোলারদের সামনে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে না পারায় ৫০ ওভার শেষে ৯ উইকেট হারিয়ে ২৭৩ রানে থামে তাদের ইনিংস। ফলে ১৫ রানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে অষ্ট্রেলিয়া।

অষ্ট্রেলিয়া দলের পেস কান্ডারি মিচেল স্টার্ক একাই তুলে নেন ৫ উইকেট। ১০ ওভার বোলিং করে ১ মেডেন সহ ৪৬ রান দিয়ে ৫ উইকেট তুলে নেন এই পেসার। দলের আরেক পেসার প্যাট কমিন্স ২ উইকেট ও লেগ স্পিনার অ্যাডাম জাম্পা ১ উইকেট শিকার করেন।

অষ্ট্রেলিয়া ও ওয়েস্টইন্ডিজ দলের সংক্ষিপ্ত স্কোর-

অষ্ট্রেলিয়াঃ ২৮৮ (৪৯ ওভার)

কোল্টার নাইল ৯২, স্টিভেন স্মিথ ৭৩, অ্যালেক্স ক্যারি ৪৫

কার্লোস ব্র্যাথওয়েট ৬৭/৩, আন্দ্রে রাসেল ৪১/২, শেলডন কটরেল ৫৬/২

ওয়েস্টইন্ডিজঃ ২৭৩/৯ (৫০ ওভার)

শাই হোপ ৬৮, জেসন হোল্ডার ৫১, নিকোলাস পুরান ৪০

মিচেল স্টার্ক ৪৬/৫, প্যাট কমিন্স ৪১/২

ম্যান অব দ্য ম্যাচঃ নাথান কোল্টার নাইল (অষ্ট্রেলিয়া)

লেখকঃ সাকির আহমদ

আরও পড়ুনঃ ওয়েস্টইন্ডিজ এর কাছে পাত্তাই পেল না পাকিস্তান

আফগানিস্তানের বিপক্ষে জয়ের কাছাকাছি অস্ট্রেলিয়া

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Your Rating:05

Thanks for submitting your comment!